মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৭:৩৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
হাজীদের জন্য মক্কায় নির্মিত হচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম হোটেল ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি করে দাপটে জয়ে ফাইনালে পাকিস্তান ক্যান্সার ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় জলপাই জানুয়ারির মধ্যে অনুমোদন না হলে ১৫০ আসনে ইভিএম যন্ত্র ব্যবহার করা সম্ভব নয় সরকারি কর্মকর্তাদের সব ধরণের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা উখিয়ার কুতুপালং ৪ নং রোহিঙ্গা ক্যাম্প এর ট্রানজিট সেন্টারে দুর্বৃত্তের গুলিঃ অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেন সাইফুল এইচএসসির প্রশ্নে ‘সাম্প্রদায়িক উস্কানি’! মন্ত্রী বললেন ‘দুঃখজনক নতুন পোশাকে মাঠে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বাহিনী টেকনাফে ৫ সন্তানের জননীকে মারধরের ঘটনায় আত্মহত্যা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এপিবিএন ও জেলা পুলিশের ’রুট আউট’ অভিযানে গ্রেফতার ৪১

ক্যান্সার ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় জলপাই

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১০ নভেম্বর, ২০২২, ১.০৯ এএম
  • ৭০ বার পঠিত

এখন ‘জলপাই’ (Olive) এর সময়। দেশের নানা প্রান্তের ছোট-বড় বাজারে হঠাৎ দেখা যায় বিক্রেতাকে জলপাই বিক্রি করতে।

তবে অন্যান্য ফলের মতো জলপাই ‘জনপ্রিয় ফল’ হিসেবে পরিণত না হলেও এর ভেষজ গুণাগুণ কম নয়।

অনেকেই জলপাইয়ের তেল অর্থাৎ ‘অলিভওয়েল’ বহু মূল্য দিয়ে কিনে থাকেন। এই তেল খাবার জন্য নয়। শীতকালে শরীরের ত্বকের রুক্ষতা আর ফেটে যাওয়া ভাব দূর করতে এই তেল অত্যন্ত কার্যকর।

জলপাই দেশি প্রজাতির ফল। শীতকাল এলেই জলপাই অনেক বেশি পাওয়া যায়। দীর্ঘদিন ধরে এই জলপাই নানানভাবে ব্যবহার হয়ে আসছে। অনেকেই আছেন যারা এই ফলটিকে খুবই পছন্দ করেন। আবার অনেকেই আছেন এটিকে খুব একটা পছন্দ করেন না।

সম্প্রতি স্থানীয় বাজারে বিক্রি হচ্ছে মৌসুমি ফল জলপাই। কেজি প্রতি দাম ৪০ টাকা থেকে ৬০ টাকা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক উপ-পরিচালক (ডিডি) কৃষিবিদ কাজী লুৎফুল বারী বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের দেশে জলপাইয়ের যে ভ্যারাইটি পাওয়া যায় তা মূলত আচার তৈরিতেই বেশি ব্যবহৃত হয়। গ্রামগঞ্জে এমনকি শহরের এক সময় মহিলারা প্রচুর পরিমাণ জলপাইয়ের আচার করতেন। রোদে শুকিয়ে প্রয়োজনীয় মসলা মিশিয়ে তারপর সরিষা তেল দিয়ে কাঁচের বোতলে সংরক্ষণ করতেন। সরিষা তেল হচ্ছে খুব ভালোমানের প্রিজারভেটিভ। এর মাঝে এক বছরের বেশি সময় আচার ডুবিয়ে রাখলেও নষ্ট হয় না। আমাদের সরিষার লোকাল ভ্যারাইটির মধ্যে একটা বিশেষ ঝাঁজ রয়েছে। এটাকে ‘ইউরেটিক এডিস’ বলে। যেটা ব্যাটেরিয়াকে প্রিভেন্ট করে। যা খাবারের উপাদানকে কখনো পচতে দেয় না, নষ্ট হাত দেয় না। হাজার বছর ধরে আমাদের দেশের নারীরা তাদের অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে এসব রন্ধনকলাকৌশল জানেন। এই লোকাল প্রেসটিসটা তাদের রয়েছে।

জলপাইয়ের ‘তেল’ সম্পর্কে এই কৃষিবিদ বলেন, আমাদের দেশে জলপাইয়ের কদর আছে আচার হিসেবেই। তবে জলপাইয়ের কমার্শিয়ালি চাষ এখন আমাদের দেশে হয়নি। কোনো কোনো দেশে জলপাইয়ের অন্য ভ্যারাইটি রয়েছে যেটা দিয়ে অলিভওয়েল তৈরি হয়। এই তেলটি অত্যন্ত সমৃদ্ধ এবং মূল্যবান এক ধরনের তেল। এগুলোর ইউরোপের অনেক দেশে আছে। যেমন- ফান্স, ইতালি, সুইজারল্যান্ড প্রভৃতি দেশে জলপাইয়ের ওই ভ্যারাইটিটা আছে। ওরা কিন্তু বাণিজ্যিকভাবে জলপাইয়ের চাষ করে। ওগুলো ছোট ছোট গাছ হয়।

আমাদের দেশ থেকে জলপাই যেন হারিয়ে না যায় সেজন্য আমরা প্রতি বছর বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে অন্যান্য গাছের সঙ্গে জলপাইয়ের চারাও বিতরণ করেছি। এই জলপাই আমাদের দেশে একটি ‘মাইনর ক্রপ’। এখনো আম, কাঁঠাল, লেবু প্রভৃতি ফলের মতো সেটা ‘মেজর ক্রপ’ হয়ে উঠতে পারেনি। ওই ফলগুলো দেশের বড় এরিয়া কাভার করে কমার্শিয়ালি অনেক বেশি চাষ হচ্ছে। তবে জলপাই কিন্তু আমাদের দেশের অনেক পুরানো ফল।

জলপাই যেহেতু টক জাতীয় ফল তাই অনেকগুলো ভিটামিন সেখানে আছে। যে ভিটামিনগুলো আমরা সব সময় পর্যাপ্ত পাই না। জলপাইয়ের খোসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশ। এই আঁশ নিয়মিত খাবার হজমে সাহায্য করে। পাশাপাশি পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত, বৃহদন্ত্র ও কোলন ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে এই ফল। ত্বক ও চুলের যত্নে, হাড়ের ক্ষয়রোধে, চোখের যত্নে, রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোসহ আরো শারীরিক উপকারে সরাসরি কাজ করে থাকে এই ফলটি। একে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা দরকার। তাতে করে আরো বেশি পরিমাণে আচার তৈরি, মূল্যবান তেল তৈরি করা যেতে পারে বলে জানান এই কৃষিবিদ।

‘ক্যানসার এবং জলপাই’ সম্পর্কে তিনি বলেন, একেকটা মৌসুমী ফল আমাদের শরীরে একেক রকম উপকার বয়ে আনে। জলপাই এবং এরূপ টকজাতীয় ফল কিন্তু ক্যান্সারকে প্রিভেন্ট করে। অনেকেই ভুল জানেন যে, জলপাই খাইলে ক্যানসার ভালো হয়। তা কিন্তু নয়। এটা খেলে ক্যানসার ভালো হয় না। জলপাই ক্যানসারকে প্রিভেন্ট করে অর্থাৎ ক্যানসার হতে দেবে না। ক্যানসারের ‘কার্সিনমিক সেল’ যদি কারো শরীরে তৈরি হয়ে যায় তবে কিন্তু যেতে হবে চিকিৎসায়।

আমরা যদি লাইফস্টাইল সুশৃংখলভাবে মেনটেইন করি এবং এই সব মৌসুমি ফলসহ প্রাকৃতিক খাবারগুলো বেশি বেশি করে খেতে চেষ্টা করি তাহলে কিন্তু ওগুলো সহজেই এই ক্যানসার জাতীয় রোগে প্রিভেন্টিভ হিসেবে কাজ করবে অর্থাৎ আমাদের শরীরে ক্যানসার হতে দেবে না। আর ক্যানসারকে সবচেয়ে বেশি ‘অ্যাংকারেজ’ করে স্মোকিং (ধূমপান), ফাস্টফুড (হোটেল এবং খাবারের দোকানে বিক্রি করা খাবার) এবং অ্যালকোহল (মদ) বলে জানান কাজী লুৎফুল বারী।

জলপাইয়ের স্বাস্থ্য উপকারিতা:

১. জলপাইয়ের তেলে পাওয়া যায় ফ্যাটি অ্যাসিড ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ত্বক ও চুলের যত্নে কাজ করে। জলপাইয়ের তেল চুলের গোড়া মজবুত করে। চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যা দূর হয়। জলপাইয়ের ভিটামিন-ই ত্বকে মসৃণ ভাব আনে।

২. জলপাইয়ের তেল হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়।

৩. নিয়মিত জলপাই খেলে গ্যাস্ট্রিক ও আলসার কম হয়। বিপাকক্রিয়া ঠিকভাবে হয়।

৪. কালো জলপাই ভিটামিন-ই এর ভালো উৎস। এটি ফ্রি র‌্যাডিকেল ধ্বংস করে। ফলে শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে। জলপাইয়ের ভিটামিন-ই কোষের অস্বাভাবিক গঠনে বাধা দেয়। ফলে ক্যানসারের ঝুঁকি কমে।

৫. জলপাইয়ের মনো স্যাচুরেটেড চর্বিতে থাকে প্রদাহবিরোধী উপাদান। হাড়ের ক্ষয়রোধ করে জলপাই তেল।

৬. নিয়মিত জলপাই খেলে পিত্তথলির পিত্তরস ঠিকভাবে কাজ করে। পিত্তথলিতে পাথর হওয়ার প্রবণতা কমে যায়।

৭. জলপাই প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি আছে। সর্দি, জ্বর ইত্যাদি দূরে থাকে। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।৮. জলপাই রক্তের চিনি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

banglawebs999991
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Bangla Webs