শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
হাজীদের জন্য মক্কায় নির্মিত হচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম হোটেল ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি করে দাপটে জয়ে ফাইনালে পাকিস্তান ক্যান্সার ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় জলপাই জানুয়ারির মধ্যে অনুমোদন না হলে ১৫০ আসনে ইভিএম যন্ত্র ব্যবহার করা সম্ভব নয় সরকারি কর্মকর্তাদের সব ধরণের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা উখিয়ার কুতুপালং ৪ নং রোহিঙ্গা ক্যাম্প এর ট্রানজিট সেন্টারে দুর্বৃত্তের গুলিঃ অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেন সাইফুল এইচএসসির প্রশ্নে ‘সাম্প্রদায়িক উস্কানি’! মন্ত্রী বললেন ‘দুঃখজনক নতুন পোশাকে মাঠে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বাহিনী টেকনাফে ৫ সন্তানের জননীকে মারধরের ঘটনায় আত্মহত্যা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এপিবিএন ও জেলা পুলিশের ’রুট আউট’ অভিযানে গ্রেফতার ৪১

দ্রুতগতিতে পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে গ্রহাণু

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ১২.৩৩ এএম
  • ৯৯১ বার পঠিত

দ্রুতগতিতে পৃথিবীর কাছ ঘেঁষে যাবে একটি গ্রহাণু। আকারে এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় আকাশচুম্বী অট্টালিকা দুবাইয়ের বুর্জ খলিফার চেয়েও বড়। এই গ্রহাণুর নাম দেয়া হয়েছে ২০০০ ডব্লিউও১০৭। এটি লম্বায় ৮০০ মিটারের বেশি উঁচু এবং প্রস্থে ৫০০ মিটারের বেশি চওড়া।

রবিবার যে কোনো সময়ে পৃথিবীর একেবারে কাছ দিয়ে এই গ্রহাণুর চলে যাওয়ার কথা। এই মহাজাগতিক ঘটনার আগাম বার্তা দিয়েছে মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। সংস্থাটির বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, খুব দ্রুতগতিতে এই গ্রহাণু পৃথিবীর কাছ দিয়ে চলে যাবে। ঘণ্টায় ৯০ হাজার ১২৪ কি.মি. গতিতে গ্রহাণুটি পৃথিবীর পাশ দিয়ে চলে যাবে বলে জানিয়েছে নাসা। সাধারণত পৃথিবীর কক্ষপথে এত বড় আকারের কোনও গ্রহাণু এলে বিপদের আশঙ্কা থাকে।

কিন্তু বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই গ্রহাণুর ফলে এবার পৃথিবীতে কোনও বিপদের আশঙ্কা নেই। এটি কাছ দিয়ে গেলেও পৃথিবীতে আঘাত হানার কোনো সম্ভাবনাও নেই বলে জানানো হয়েছে।

নাসা বলছে, পৃথিবী থেকে ৪৩ লাখ ২ হাজার ৭৭৫ কিমি দূর দিয়ে চলে যাবে এই গ্রহাণু। এর আকার ১২ হাজার থেকে ২৫ হাজার ৭০০ ফুটের মধ্যে। ব্যাস ২ হাজার ৬৯০ ফুটের মতো।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকো প্রদেশে এই গ্রহাণুটি আবিষ্কার করেছেন মহাকাশ বিজ্ঞানীরা। এই গ্রহাণুটি পৃথিবীর কক্ষপথ দিয়ে গেলেও সেটিকে খালি চোখে দেখা যাবে না বলে জানিয়েছে নাসা। তবে ছোট টেলিস্কোপের সাহায্যে দেখা যেতে পারে।

নাসা বলছে, মহাকাশে এখন পর্যন্ত ১০ লাখ ৩১ হাজার ৪৮৮টি গ্রহাণু তৈরি হয়েছে। প্রায় ৪.৬ বিলিয়ন বছর আগে সৌরজগৎ তৈরি হওয়ার শুরুর দিকে এই পাথুরে, বাতাসবিহীন গ্রহাণুগুলো তৈরি হয়। এই গ্রহাণুগুলো পৃথিবীর কক্ষপথে এলে কিছুটা প্রভাব ফেলেই। তবে এবার পৃথিবীতে এর কোনও প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছেন নাসার বিজ্ঞানীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

banglawebs999991
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Bangla Webs