মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০২৪, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামীদের ধ্বংসে পদক্ষেপ নিল আর্জেন্টিনা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গুলিবিদ্ধ! আলোর ছোঁয়া ফ্রেন্ডশিপ ক্লাবের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন ও চারা বিতরণ এর শুভ সূচনা  ভারতের সঙ্গে সকল চুক্তি বাতিলের দাবীতে আজ জেলা ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ আলোর ছোঁয়া ফ্রেন্ডশিপ ক্লাব” এর ঈদ পুনর্মিলন ও অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নতুন কাজী নিয়োগ আলোর ছোঁয়া ফ্রেন্ডশিপ ক্লাবের ৩৬ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা আরও তিন বছর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবে মালয়েশিয়া সেন্টমার্টিন ও ইনানীতে বেনজীরের জমি কাউন্সিলর নুর মোহাম্মদ মাঝুর পিতার ইন্তেকালে জেলা ইসলামী আন্দোলনের শোক ও দোয়া
পদে পদে হারুনের বিরুদ্ধে অভিযোগ: মঙ্গলবার প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা

পদে পদে হারুনের বিরুদ্ধে অভিযোগ: মঙ্গলবার প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা

শাহবাগ থানায় ওসি’র (তদন্ত) কক্ষে ছাত্রলীগ নেতাদের মারধরের ঘটনার পুলিশের তদন্ত শেষ পর্যায়ে। মঙ্গলবার প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা রয়েছে।

এ ঘটনায় তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি ২৫-৩০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেছে। এর মধ্যে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হারুন-অর-রশীদ, এডিসি সানজিদা আফরিন, পরিদর্শক মো. গোলাম মোস্তফা রয়েছেন।

ছাত্রলীগের ভুক্তভোগী নেতা এবং ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতাল ও থানার প্রত্যক্ষদর্শীদেরও সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। তাদের অধিকাংশের বর্ণনায় হারুনের বিরুদ্ধে হাসপাতাল থেকে থানায় নির্যাতন পর্যন্ত নিপীড়নমূলক ভূমিকায় থাকার অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে হারুন এবং সানজিদা এ ঘটনার সূত্রপাতের জন্য রাষ্ট্রপতির এপিএস আজিজুল হক খান মামুনকে দায়ী করেছেন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তদন্তসংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র এবং ভুক্তভোগীরা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তদন্তসংশ্লিষ্ট ডিএমপির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, ‘তদন্ত শেষ পর্যায়ে রয়েছে। মঙ্গলবার প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন যে তদন্ত চলছে এর মাধ্যমে মূলত ঘটনায় কার কী ধরনের ভূমিকা সেটি নিরূপণ করা হবে। প্রাথমিক তদন্তে সাধারণত শাস্তির সুপারিশ করা হয় না। কার বিরুদ্ধে কোন অপরাধ সেটি বলা হয়। বিভাগীয় তদন্তে গিয়ে শাস্তির সুপারিশ করা হয়। তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি মূলত কে কী কাজ করেছে এর পাশাপাশি কোন বিষয়টি শাস্তিযোগ্য, কোনটি শাস্তিযোগ্য নয়, সেগুলো বলবে। এরপর বিভাগীয় তদন্ত হবে।’

তদন্ত কমিটি ঘটনার মূল ভুক্তভোগী ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন নাঈম এবং ছাত্রলীগের বিজ্ঞানবিষয়ক সম্পাদক শরীফ আহমেদ মুনিমেরও বক্তব্য নিয়েছে। তারা তদন্ত কমিটির কাছে ঘটনার আদ্যোপান্ত ও নির্যাতনের বর্ণনা তুলে ধরেছেন।

সেদিনের ঘটনায় এডিসি হারুনের পর সবচেয়ে আগ্রাসী ভূমিকায় পাওয়া গেছে পরিদর্শক মোস্তফাকে। এদিকে আহত ছাত্রলীগ নেতাদের পক্ষ থেকে হামলায় ১০-১৫ জনের অংশগ্রহণের কথা বলা হলেও এখন পর্যন্ত তদন্তে ৮-১০ জনের নাম উঠে এসেছে।

গত ৯ সেপ্টেম্বর দিন রাতে শাহবাগ থানায় ছাত্রলীগের দুই নেতাকে নির্মম নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে রমনা জোনের তৎকালীন এডিসি হারুন-অর-রশীদসহ ১০-১৫ জন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে।

নির্যাতিতদের অভিযোগ, ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে এপিএস মামুনের স্ত্রী সানজিদার সঙ্গে হারুনকে দেখে ফেলায় তাদের ওপর এ নির্যাতন নেমে আসে। থানা হেফাজতে নিয়ে পিটিয়ে তাদের রক্তাক্ত করা হয়।

তবে হারুন ও সানজিদার পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গেলে সানজিদার স্বামী মামুন সেখানে গিয়ে ঘটনাটিকে বড় করেন। তিনিই প্রথম হারুনের শরীরে আঘাত করেন। ঘটনার শুরু সেখানেই।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design By Rana