1. banglahost.net@gmail.com : rahad :
  2. teknafnews24@gmail.com : tahernaeem :
মাদক মামলায় মা-ছেলের ১০ বছরের কারাদণ্ড - Teknaf News24
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ও আটকে পড়া পাকিস্তানিরা বাংলাদেশের বোঝা: প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিক-ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা হচ্ছে না! বাংলাদেশ কোনো ধর্ম ব্যবসায়ী-মৌলবাদীর আস্তানা হতে পারে না- তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী উখিয়ার ৫ ইউনিয়নে ৩৯২ প্রার্থীর মনোনয়ন জমা টেকনাফে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক হস্তান্তর হোয়াইক্যং বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমবায় সমিতির নির্বাচনে হানিফ সভাপতি,মুর্শেদ সম্পাদক নির্বাচিত আইসের চালান ধরা পড়লে টাকা দিতে হয় না মিয়ানমারে টেকনাফের ৩ ইউনিয়নের নবনির্বাচিত সদস্য ও মহিলা সদস্যদের শপথ অনুষ্টান সম্পন্ন উখিয়ার ৫ ইউনিয়নে আ.লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত তারুণ্যের আইডল,কওমী জগতের গর্বিত সন্তান আল্লামা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ

মাদক মামলায় মা-ছেলের ১০ বছরের কারাদণ্ড

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২৯০ বার পঠিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে মাদক মামলায় মা-ছেলের ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। সেইসঙ্গে তাদের দুইজনকেই পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালতের হাকিম সাবেরা সুলতানা খানম এই রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মরিচাকান্দির কালা মিয়ার স্ত্রী ঝরনা বেগম ও তার ছেলে সুমন। এর মধ্যে ঝরনা বেগম পলাতক রয়েছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৮ নভেম্বর জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মরিচাকান্দিতে র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ৪০ হাজার ৫০০ ইয়াবাসহ ঝরনা বেগম ও তার ছেলে সুমনকে আটক করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্যে আরেক অভিযানে মাদক পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত দুইটি স্পিডবোট আটক করা হয়। এসময় পলাতক ফরিদ মিয়া ও সবুজ মিয়া নামে দুইজনসহ ওই মা-ছেলের বিরুদ্ধে মামলা হয়। মামলায় সবুজ মিয়ার সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় তাকে বাদ দিয়ে তিন আসামিকে অভিযুক্ত করে চার্টশিট প্রদান করা হয়। এরই মধ্যে ঝরনা বেগম ও তার ছেলে সুমন জামিনে বের হয়। আদালত সার্বিক দিক পর্যালোচনা করে তাদের দশ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ডের এই রায় দেয়।

এর মধ্যে ঝরনা বেগম যেদিন গ্রেপ্তার বা আত্মসমর্পণ করবেন, সদিন থেকে তার সাজা কর্যকর শুরু হবে। অপর আসামি ফরিদ মিয়ার সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় তাকেবেকসুর খালাস দেয় আদালত।

এ মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (এপিপি) শরীফ হোসেন বলেন, রায়ে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিজ্ঞ বিচারক সঠিক ও যৌক্তিকভাবে এই রায় দিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Bangla Webs