বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
হাজীদের জন্য মক্কায় নির্মিত হচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম হোটেল ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি করে দাপটে জয়ে ফাইনালে পাকিস্তান ক্যান্সার ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় জলপাই জানুয়ারির মধ্যে অনুমোদন না হলে ১৫০ আসনে ইভিএম যন্ত্র ব্যবহার করা সম্ভব নয় সরকারি কর্মকর্তাদের সব ধরণের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা উখিয়ার কুতুপালং ৪ নং রোহিঙ্গা ক্যাম্প এর ট্রানজিট সেন্টারে দুর্বৃত্তের গুলিঃ অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেন সাইফুল এইচএসসির প্রশ্নে ‘সাম্প্রদায়িক উস্কানি’! মন্ত্রী বললেন ‘দুঃখজনক নতুন পোশাকে মাঠে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বাহিনী টেকনাফে ৫ সন্তানের জননীকে মারধরের ঘটনায় আত্মহত্যা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এপিবিএন ও জেলা পুলিশের ’রুট আউট’ অভিযানে গ্রেফতার ৪১

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগে সাক্ষ্য দেবেন রোহিঙ্গা নারীরা

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ জুলাই, ২০২২, ২.০২ পিএম
  • ১৯১ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট::

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর চালানো গণহত্যার ঘটনায় আর্জেন্টিনার বুয়েনাস আয়ার্সের একটি আদালতে হওয়া মামলায় সাক্ষ্য দেবেন রোহিঙ্গা নারীরা। দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গা নারীদের একটি দল আর্জেন্টিনা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আশা করা হচ্ছে, বুয়েনেস আয়েরেসের একটি আদালতে একদল রোহিঙ্গা নারী মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে চলমান গণহত্যার অভিযোগের পক্ষে সাক্ষ্য দিতে আগামী ২ মাসের মধ্যে আর্জেন্টিনায় পৌঁছাবেন।

যারা প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন তারা প্রত্যেকেই দূর থেকেই আদালতের কাছে তাদের যৌন নিপীড়ন বিষয়ে সাক্ষ্য দিয়েছেন।

আর্জেন্টিনার আদালত ‘সর্বজনীন ন্যায়বিচারের’ ধারণায় বিশ্বাস করে। অর্থাৎ, দেশটির আদালতের মতে, পৃথিবীর যেখানেই গণহত্যাসহ যেকোনো ধরনের ভয়াবহ ঘটনা ঘটুক না কেনো, সেটার বিচার পৃথিবীর যেকোনো আদালতেই হতে পারে।

এই মামলার মূলে আছে ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর নিপীড়ন। সে বছর রোহিঙ্গা অধ্যুষিত ৩৭০টি গ্রাম আগুনে পোড়ানো হয়। রাখাইন রাজ্যে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) নামের একটি সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ অভিযান চালায়। শত শত বেসামরিক রোহিঙ্গা নিহত হয়।

জাতিসঙ্ঘ বলেছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এই কর্মকাণ্ড গণহত্যার নামান্তর। এ অভিযানের পর ৭ লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

বার্মিজ রোহিঙ্গা অর্গানাইজেশন ইউকের (বিআরওইউকে) নামের একটি সংস্থা ২০২১ সালের ১৩ নভেম্বর মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে মামলা করে, যেটি পরের মাসেই আর্জেন্টিনার কেন্দ্রীয় আদালত গ্রহণ করে।

এছাড়াও, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালত ও জাতিসঙ্ঘের আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (আইসিজে) আইনি প্রক্রিয়া চলছে।

বিআরওইউকের সভাপতি তুন খিন জানান, এবারই প্রথমবারের মতো রাখাইন রাজ্যে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন বিষয়ে কোনো আন্তর্জাতিক আদালতে রোহিঙ্গা নারীরা সরাসরি সাক্ষ্য দেবেন।

বিআরওইউকে’র প্রেসিডেন্ট তূন খিন বলেন, ২০১৭ সালে রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে মিয়ামারের সামরিক বাহিনী যে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে সেই অভিযোগের শুনানিতে এই প্রথম রোহিঙ্গা নারী ও মেয়েরা আন্তর্জাতিক আদালতে হাজির হচ্ছেন।

সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে আদালতে শুনানির বিষয়ে সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল ঝাও মিন তুন বলেন, ‘আমরা আইসিজেতে জবানবন্দি দিয়েছি, যেটি জাতিসঙ্ঘের একটি আনুষ্ঠানিক সংস্থা। সেখানে আমরা ব্যাখ্যা করেছি রাখাইন রাজ্যে আগে স্থিতিশীলতা বজায় ছিল।

তিনি আরো বলেন, আরসা জঙ্গি দলের কার্যক্রম শুরুর পর থেকে সংঘর্ষ দেখা দিয়েছে। যারা অভিযোগ করেছেন, তাদের রাখাইন রাজ্যে বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের পূর্ব ইতিহাস বিশ্লেষণ করা উচিৎ।

জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার মিশেল ব্যাচেলেত অন্য দেশগুলোকে আর্জেন্টিনা ও তুরস্কের সাথে আইনই লড়াইয়ে যোগ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট আরজেন্টিনা ও তুরস্কের সাথে অন্যান্য দেশকেও যুক্ত হবার আহ্বান জানিয়েছেন। এ দু’টি দেশ বৈশ্বিক বিচার ব্যবস্থার সাথে সামঞ্জস্য রেখে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে।
সূত্র : ভয়েস অফ আমেরিকা

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

banglawebs999991
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Bangla Webs